Thursday

Tagged under: , ,

পৃথিবীর ইতিহাসে দুইজন স্বজাতিহৈতষনার সবচেয়ে বড় দুটি দৃষ্টান্ত!

১:
সম্রাট শাহজাহানের কন্যা জাহানারা খুবই ভালবাসতেন তার এক দাসীকে। সেই দাসীর শরীরে একবার আগুন লেগে গেলে জাহনারা সেই আগুন নেভাকে গিয়ে নিজেই খুব অসুস্থ হয়ে যান। মুমুর্ষ জাহানারাকে সুস্থ করার জন্য রাজ্যের নামকরা চিকিৎসকরা ব্যর্থ হলেন। 
তখন সম্রাট ইংরেজ চিকি‍ৎসক গ্যব্রিয়েল ব্রাউনকে ডাকলেন। গ্যব্রিয়েল বললেন চিকিৎসা করতে হলে রোগিনীকে দেখা প্রয়োজন। সভাসদরা হায় হায় করে উঠলেন; ব্যাটার কত্তবড় সাহস! অবশেষে সম্রাট রাজী হলেন এবং অল্প কদিনেই জাহানারা সুস্থ হয়ে উঠল। সম্রাট এতই খুশি হলেন যে ইংরেজ চিকিৎসককে ডেকে বললেন; বল কি চাও তুমি? তোমাকে তাহাই দেয়া হবে।
গ্যব্রিয়েল ব্রাউন বললেন; নিজের জন্য কিছু চাই না। কলকাতার একশত চল্লিশ মাইল দক্ষিনে বালাশোরে ইংরেজদের কুঠি নির্মানের জন্য চাই একখন্ড জমি আর বিনা শুল্কে ইংরেজদের জন্য অবাধ বানিজ্যের সুযোগ।
তাৎক্ষনিক সম্রাট তা মঞ্জুর করলেন।


২:
১৯১৬ সালের ১ম মহাযুদ্ধের সংকটকাল। ইংল্যান্ডে বিস্ফোরন উৎপাদনের ‍অপরিহার্য উপাদান অ্যাসিটোনের খুবই অভাব। তখন কৃত্রিম অ্যাসিটোন তৈরীর ভার নিলেন ম্যাঞ্চেষ্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ইহুদি অধ্যাপক ও বিজ্ঞানী ড. কাইম ভাইজম্যানের উপর। প্রধানমন্ত্রী লয়েড জর্জ বললেন; প্রফেসর, সমগ্র ব্রিটেনের ভাগ্য তোমার সফলতার উপর। তার নিরন্তন প্রচেষ্টার ফলে একদিন তিনি সফল হলেন এবং সেইবার পরাজয়ের হাত হতে রক্ষাপেল ব্রিটেন।
প্রধানমন্ত্রী লয়েড জর্জ বিজ্ঞানীকে শুধালেন; কি চাও তুমি?
কিন্তু বিজ্ঞানী নিরব। তিনি কিছু চাইলেন না।
প্রধানমন্ত্রী আবার প্রশ্ন করলেন: কি চাও বিজ্ঞানী? পিয়ারেজ? অর্থ?
কিন্তু নিজের জন্য কিছু চাইলেন না তিনি। কিছু নয়, একটি মাত্র যাঞ্চা তাঁর। আমি স্বজাতির জন্য চাই একটি দেশ, একটি ভুখন্ড। ইহুদিদের ন্যাশনাল হোম।
আর তার কিছুদিন পরেই বেলফোর ঘোষনায় ইহুদিদের জন্য প্যালেষ্টাইনে নির্দিষ্ট হল একটি জাতীয় বাসস্থান। যদিও আজ তাদের প্রকৃত অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে কিনা এ নিয়ে বিশ্ব নেতৃবৃন্দরা উদ্বিগ্ন!!!

0 Comments: