Thursday

Tagged under: , , ,

দ্যা এক্সটেনশন স্টেট

মা, মা, মঙ্গল গ্রহে কি আমাদের মত মানুষ আছে? তারা কি আমাদের মত?
না, বাবা এখনও আমাদের বিজ্ঞানীরা সেখানে আমাদের মত প্রানের অস্তিত্ব খুজে পান নি। প্রতিদিন ঘুমানোর সময় ছোট ছেলের অসংখ্য প্রশ্নের উত্তর দিতে হয় নর্থ ক্যারোলিনার ডোটি কভিংটনকে।
আমাদের বিজ্ঞানীরা চাদে গিয়েছে
, মঙ্গলে গিয়েছে কিন্তু আমাদের মত প্রানের অস্তিত্ব এখনো খুজে পান নি।
তবে কি আমাদের এই আমেরিকার বাইরে ঠিক আমাদের কোন বন্ধু অংশ নেই? বিস্মিত হয়ে মাকে প্রশ্ন করে ছোট্ট ছেলে।
কিছুক্ষন চিন্তা করে ডটি উত্তর দেন; তবে হ্যা, আমি আমার মায়ের কাছ থেকে শুনেছিলাম, আমার মা- মানে তোমার নানু শুনেছিলে
তার নানুর কাছ থেকে. . .
মায়ের কথা শেষ না হতেই অস্তির হয়ে ওঠে ছোট্ট ছেলেটি; কি মা? দ্রুত বল।
আমার মা আমাকে বলেছিলেন; এই মাকির্ন মুলুকের বাইরে আমাদের আরো একটি এক্সটেনশন স্টেট আছে।
সেটা কোথায় মা?
সেটা অনেক দূরে, এই পৃথিবীর শেষ প্রান্তে। বঙ্গপোসাগর নামে একটি সমুদ্র আছে, সেই সাগরের কোল ঘেষে সেই দেশের অবস্থান। 
তারা এখন কি করছে মা? তারা কি আমাদের মতই সব কিছু করে?
সেটা তো অনেক দূরে বাবা, আমি তো জানি না। মাঝে মাঝে তাদের দূ-একজন এই দেশে আসে, আমাদের লোকজনও কেউকেউ সেই স্টেটএ যায়। তবে তারা অনেকেই এই সত্যটা জানে না এবং আমাদের লোকজনও অনেকে এই সত্যটা জানে না।  তবে আমাদের মধ্যে এখনো ক্ষীন একটা যোগাযোগ আছে। তারা তাদের মত থাকে, তারা আমাদের সরকার ব্যবস্থা এবং অন্যন্য কায্য প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত নয়, আমরাও তাদের কখনো এইসব বিষয়ে কিছু বলি নি এবং
তারাও কখনো এইসব ব্যাপারে কথা তোলে নি।
এখন বল তো মা, কবে তারা আমাদের অংশে পরিনত হবে কিংবা আমরা তাদের অংশে পরিনত হব?
একমাত্র ছেলের প্রশ্ন আর উত্তর- এই কথপোকথনের এক পয্যায়ে সারাদিনের পরিশ্রমে ক্লান্ত তরুনী মা ডটি কভিংটন এক সময় ঘুমিয়ে পড়েন।