স্বর্ণযুগ এবং মি. ক্যাসপারস্কাই



আপনী আমাকে সত্যি করে বলুন মি. ক্যাসপারস্কাই, কপটিক চার্চের পোপ সেনুদার সাথে আপনার কি কখনো দেখা হয়েছিল?

ক্যাসপারস্কাই দীর্ঘশ্বাস ছাড়লেন। তার মনে পড়ে মৃত্যুর পুর্বে সেনুদা তাকে এই তরুনটির কথাই বলেছিল যে সে আসবে।

তরুন আবার প্রশ্ন করে; কেমন মানুষ ছিলেন সেনুদা? তিনি কি দেখতে আমাদেরই কারো মতন ছিলেন মি. ক্যাসপারস্কাই? যদিও আমি হলোভিশনে তাকে দেখেছি। আমি তাকে ভালবেসেছিলাম। সেনুদাকে আমার নিজের সত্তায় পরিনত করেছিলাম। 

ক্যাসপারস্কাই বললেন; পোপ সেনুদা খ্রি অফ গ্রেটার আলেকজান্দ্রিয়া ছিলেন মধ্যপ্রাচ্য ও বিশেষ করে তুরস্কে খ্রিষ্টান কমিউনিটির সর্বোচ্চ সম্মানিত ব্যাক্তি ও  সবচেয়ে বড় চার্চ কপটিক (Coptic)  এর কর্নধার। যদিও তুরস্কে নব্বই ভাগ জনগোষ্টিই মুসলমান ত্বদসত্বেও বিশ্ব রাজনীতি, অর্থনীতি, ধর্মীয় স্বাধীনতা ও অনুশাসন এমনকি জ্ঞান-বিজ্ঞানভিত্তিক অগ্রযাত্রায় কপটিক এর অবদান ও প্রভাব কিছুতেই কম নয় আর ক্লাসিক্যাল কপটিক এর জনক হচ্ছেন পোপ সেনুদা।

তরুন প্রশ্ন করে; সেনুদা কি ওভারসিয়ার পদমর্যাদায় ১ ‍তিমথিয় ৩:১-১৩ এর অনুসরন করেছিলেন। নাকি অন্যকোন রেফারেন্স?

ক্যাসপারস্কাই বললেন; ইয়াংম্যান, সেনুদা মারা গেছেন কিন্তু তিনি বেচে আছেন আমাদের প্রতিটি মানুষের অন্তরে। তার আদর্শ এখনো টিকে আছে এবং থাকবে। ইশ্বররে কাছ থেকে পাওয়া পরিকল্পনা গুলি ঈসা মসীহ আমাদের দিয়ে গেছেন, মানব জাতির মুক্তি,কল্যান এবং মৃত্যু পরবর্তী মুক্ত জীবনের জন্য। পবিত্র বাইবেলে সবকিছু লেখা আছে। আজ আমি তোমাকে অন্য একজন ওভারসিয়ার এবং অন্য একটি চার্চের কথা শোনাবো। ওভারসিয়ার বারাক ওবামা এবং পৃথিবীর সকল চার্চের চেয়ে সম্মান ও জ্ঞানে উচু হোয়াইট হাউজ।

ইতিহাসের অংশ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জম্নই হয়েছিল ইতিহাসের স্মরনীয় এক বিজ্ঞান গবেষনার মধ্য দিয়ে, যা শুধু একটি পলিটিক্যাল রেভ্যুলেশনই ছিল না, বরঞ্চ একটি সায়েন্টিফিক রেভ্যুলেশনই সেখানে মুখ্য ছিল, যার ক্ষুদ্র অংশ ছিল রাজনৈতিক বিপ্লব। কিন্তু শিশু যুক্তরাষ্ট্র শুরু হতেই শত বাধা বিঘ্ন অতিক্রম করে হাটি হাটি পা পা করে এগিয়ে চলছিল।

বিজ্ঞানী দম্পতি পিয়েরে কুরি ও মেরি কুরি’র মুত্যুর পর ইতিহাসের দ্বিতীয় বৃহত্তম এম্পায়ার হিসেবে পরিচিত ফ্রান্স এম্পায়ার ভেঙ্গে যায়, যাতে ইউনাইটেড স্টেটেস অফ আমেরিকার চলার পথ আরো সুগোম হয়ে আসে। একই শতকে ইতিহাসের দীর্ঘ মেয়াদী ও সুবিশাল ব্রিটিশ এম্পায়ারও ভেঙ্গে যায়। উক্ত দুটি এম্পায়ার ভেঙ্গে যাওয়ার আক্ষরিক অর্থই ছিল পতন। কিন্তু একই শতকের গোড়ার দিকে আরো একটি এম্পায়ার ভেঙ্গে যায়; মুলত রুশিয়া এম্পায়ার ভেঙ্গে যাওয়ার অর্থ ছিল আরো শক্তিশালী নতুন একটি শক্তির উত্থান। রাশিয়া এম্পায়ার ভেঙ্গে গড়ে উঠে সোভিয়েত ইউনিয়ন। অন্যদিকে ব্রিটিশ এম্পায়ার ভেঙ্গে গেলেও খুব দ্রুত ভেঙ্গে যাওয়া অংশগুলি নিয়ে গঠিত হয় ব্রিটিশ কমনওয়েলথ যা মুলত ব্রিটিশ এম্পায়ারেরই নতুন রুপ ছিল।

যাইহোক এই বিষয়গুলি সার্বিকভাবে প্রথম নজরে আসে যখন লিবিয়ার নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফী এক ভ্রমনে ইটালি যান। সেখানে মডেল, অভিনয়, চাকুরী ও প্রশিক্ষনের নামে নিয়োগ দেওয়া প্রায় দুশো তরুনীর মাঝে মুয়াম্মার গাদ্দাফীর ভাষন ও কুরআন বিতরন যা প্রচন্ডভাবে সমালোচিত হয়োছিলও বটে, ‍কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সেটা ছিল বিশ্ব রাজনীতির গভীরে কোন ঘটনাকে আড়াল করার চেষ্টা। প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করার চেষ্টা বেশ সফল হয়েছিলও বটে কিন্তু ধীরে ধীরে প্রকৃত পরিকল্পনাগুলি বেরিয়ে আসে। গাদ্দাফীর উদ্যেগে গঠিত আফ্রিকান ইউনিয়ন যেখানে প্রকৃতপক্ষেই যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা কোন হুমকি দেখিতে পান নি। কারন ইতিপুর্বে আল-কায়েদা কর্তৃক ইতিহাসের স্মরনীয় ও মর্মান্তিক টুইন টাওয়ার হামলার প্রভাব ঠেকাতে অনেক অর্থ ব্যায় ও প্রানহানি হলেও যুক্তরাষ্ট্রকে খুব বেশী বেগ পেতে হয় নি।

কিন্তু ‍কিছুদিনের মধ্যেই খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসতে শুরু করে প্রকৃত বিট্রিশ কমনওয়েলথ ও ইউরোপের সাতাশটি দেশ নিয়ে গঠিত ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ইতিমধ্যে দীর্ঘ উনসত্তর বছরের সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে পনের খন্ডে বিভক্ত হয়ে যায়। কিন্তু রাশিয়ার সুদীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসে দেখা গেছে রাশিয়ার সীমারেখা বা যে কোন ধরনের রাজনৈতিক পতন বা বিপ্লব মুলত নতুন কোন সম্ভাবনাকেই ইঙ্গিত করে।  সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে গঠিত হয় আরো শক্তিশালী রাশিয়া ফেডারেশন। খুব দ্রুতই আবার ভেঙ্গে যাওয়া অংশগুলি নিয়ে গঠিত হয় কমনওয়েলথ অফ ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেটস এবং একই সময়ে রাশিয়া ইউনাইটেড ‍পার্টির গভীরে ধীরে ধীরে গড়ে উঠতে থাকে ‍ফেডারেশনের চেয়েও আরো শক্তিশালী একটি কমনওয়েলথ বা ইউনাইটেড স্টেটস অফ রাশিয়া বা আরো শক্তিশালী কিছু।

আফ্রিকান ইউনিয়ন বিশ্ব রাজনীতিতে তেমন কোন প্রভাব বিস্তার করতে না পারলেও। ‍ ব্রিটিশ কমনওয়েলথ, বিশেষ করে খুবই সাম্ভাব্য ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন যা পরবর্তিতে ইউনাইটেড স্টেটস অফ ইউরোপ বা বিখ্যাত লেখক আর্থার সি ক্লাকের সাহিত্যিক নাম ইউরোপা‘য় রুপ নিতে যাচ্ছে, কিংবা রাশিয়া কমনওয়েলথ বা ইউনাইটেড (স্টেটস অফ) রাশিয়া কিংবা আরো শক্তিশালী কিছু একের পর ইউনাইটেড স্টেটেস অফ আমেরিকা বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামনে আক্ষরিক অর্থেই চিন্তার বিষয় হয়ে দাড়ায়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যখন রাজনৈতিকে কম গুরুত্বপুর্ন করে শুধুমাত্র একটি সাংস্কৃতিক ও বৈজ্ঞানিক সীমারেখায় সম্পৃক্ত হতে শুরু করে তখন এমন বেশকিছু থ্রেট বা হুমকির সম্মুখীন হতে শুরু করে। ঠিক এমন একটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা তখনো শিশু, এমন চড়াই উতড়াই মধ্যে উক্ত সমস্যাগুলি নিয়ে বিশ্বরাজনীতির মঞ্চে উঠে আসেন আইনজীবি, লেখক, পলিটিক্যাল সায়েন্টিস্ট বারাক ওবামা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চুয়াল্লিশতম প্রেসিডেন্ট। অনেক সমস্যা ও বিশ্ব রাজনৈতির হুমকি গুলিকে তিনি তুলে আনতে সক্ষম হলেও এত সমস্যার সামাধান তার জানা ছিল না। কিন্তু তা সত্বেও জর্জ ওয়াশিংটন, থমাস জেফারসনের পরে তিনিই নতুন করে জর্জ ওয়াশিংটনের পরিকল্পনাগুলিকে সংঘবদ্ধ করে সমস্যার গভীরে দৃষ্টি দিলেন, এবং পরবর্তীতে দেখা গেছে জর্জ ওয়াশিংটনের পরে বারাক ওবামাই সবচেয়ে বেশী ও সফলভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফাউন্ডিং ফাদারদের নিদের্শিত পথে যুক্তরাষ্ট্রের পরিকল্পনাকে চালিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন। বারাক ওবামা ছিলেন মুলত যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম সফল সংস্কারক।

বারাক ওবামার দীর্ঘ ও জটিলতর রাজনৈতিক জীবনের প্রভাবকে ছাড়িয়েও তিনি একজন সফল ও প্রভাবশালী লেখক হিসেবে ইতিহাসে নিজের অবস্থানকে সুদৃঢ় ভাবে ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছেন এবং ইতিহাসে তিনি শুধু মাত্র একজন লেখক ও বিজ্ঞানীহিসেবেই পরিচিত যেখানে তার সামাজিক, ধর্মীয় ও রাজনৈতিক পরিচয় ও কর্মজীবন লুকিয়ে আছেগবেষকদের জন্য।
 

Comments