300x250 AD TOP

Blog Archive

Powered by Blogger.

Monday

Tagged under: , , , ,

কোহেকাফ নগরঃ টু দ্যা এম্পায়ার (১ - ৫)

“অনেক অতীত অতীত জগতের কথা। আমার পুর্বে অন্তত দশ লক্ষ পুর্বপুরুষ আগের ইতিহাস! যখন জাগতিক মহাবিশ্বগুলিতে হিউম্যান, জাইন এবং রোবট নামে তিনটি আল্ট্রাসুপার সেন্টিয়েন্ট সম্প্রদায় রাজত্ব করে আসছিল। বিজ্ঞান প্রযুক্তি, সর্ব প্রকার জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং ক্ষমতার শীর্ষে পৌছে গিয়েছিলো তারা। এই ইতিহাস ভিত্তিক সিরিজে তিনটি আল্ট্রাসুপার সেন্টিয়েন্ট ছাড়াও আরো বেশ কিছু সেন্টিয়েন্ট সম্প্রদায় নিয়েও আলোকপাত করা হয়েছে। কিন্তু এই কোহেকাফ নগর মুলত একটি ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজ (দ্যা সিরিজ – DA Series) নামে পরিচিত যা মুলত জাইন জাতির বিস্ময়কর ইতিহাস এর গল্প মহাকাব্যিক ধাঁচে বর্ননা করা হয়েছে। কোহেকাফ নগর বা অডাসিটি (AudaCity) হচ্ছে জাইন সম্প্রদায়ের হার্ট- কেন্দ্রবিন্দু – তাদের মাদার ইউনিভার্স। এই কোহেকাফ নগর থেকেই জাইন জাতি সমস্ত মহাবিশ্বগুলিতে বিস্তার লাভ করেছিলো। এই সিরিজটি শুরু হয়েছে মানুষ সম্প্রদায় মহাবিশ্বের একটি এম্পায়ারের কিছু বর্ননা দিয়ে এবং ধীরে ধীরে সিরিজটি কোহেকাফ নগরের মধ্যে যাত্রা করে। মহাবিশ্বের সাহিত্য জগতের ইতিহাসে এ যাবতকাল পর্যন্ত যতগুলি সিরিজ, গল্প, উপন্যাস, মহাকাব্য এবং গবেষনা ইতিহাস লেখা হয়েছে তার মধ্যে এই কোহেকাফ নগর নামের ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজটি সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সমস্ত সাহিত্য ধারার মধ্যে ব্যতিক্রম। যাইহোক, দেখা গেল বিজ্ঞান প্রযুক্তি, সর্ব প্রকার জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং ক্ষমতার শীর্ষ বলতে কিছু কিছু নেই। এটা একটা চলমান এবং ক্রমান্নোত উন্নতির একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া আর তাই আমরা এখনো ক্রমাগত ভবিষ্যতের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছি এবং দিনদিন উন্নত থেকে উন্নতর হচ্ছি। আমরা জানি না এর শেষ কোথায়, কোথায় আমাদের শেষ যাত্রা, কোথায় আমাদের থামতে হবে।।”-মিলিয়ান ইয়াম; অডিটরিয়াল এজেন্ট, বিজ্ঞানী, গবেষক, ইতিহাসবিদ, সাহিত্যিক এবং চিফ রাইটার। 


১: 
কিংডম অফ রাইন ইউনিয়ন। 
গ্যালাক্সী অফ ওমেগা সেঞ্চুরীর ক্যাপিট্যাল এই ইউনিয়নটি ছোটবড় প্রায় দুইশত গ্রহের সমন্বয়ে গঠিত। কৃষিজ গ্রহে সিহামের বেড়ে ওঠা। শৈশব থেকেই সে কখনো প্রকৃতির সাথে, চারপাশের মানুষগুলির সাথে একপ্রকার প্রতিযোগিতা করে বেড়ে উঠেছে। জীবন ও জীবিকাকে সে অনেক কাছ থেকে দেখতে পেয়েছিল। তরুন সিহাম কাজ করতো একটা কৃষিপন্য প্যাকেটজাত কোম্পানীতে। প্রতিদিন গ্যালাকটিক মার্চেন্ট মেরিনের শতশত কার্গোশিপ এই গ্রহের কৃষিজ পন্য পৌছে দেয় দুরদুরান্তের গ্রহগুলিতে, বিনিময়ে আমদানী করে প্রযুক্তিপন্য, প্রসাধনী ও ঔষধ আর শিশুদের খেলনা। বিগত বছরে সে বেশকিছু অর্থ জমিয়েছে যা দিয়ে অনায়েসে কয়েকমাস চলতে পারবে তাই আপাতত সে ভাল না লাগা চাকরীটা ছেড়ে দিয়েছে। পড়ালেখাটাও ঠিকমতো হয়ে ওঠে নি। একপ্রকার খাপছাড়া ও ছন্নছাড়া জীবন। নেই কোন ভালবাসার মানুষও। সিহাম তার জীবনের লেভেলটা বুঝতে পারছে না যে সে এখন কোন অবস্থায় আছে। তবে এটুকু অনুভব করতে পেরেছে যে সে খুবই ভালনারেবল। উচ্চশিক্ষা বা ভাল চাকুরীর জন্য যখন তার উন্নত কোন গ্রহে যাবার সুযোগ ছিল,তখন সে যায় নি। কিন্তু এখন সে একটু একটু করে প্রকৃত সত্য বুঝতে পেরেছে সময় আর সুযোগ কারো জন্য অপেক্ষা করে না কিংবা ফিরেও আসে না, এমনকি পাশে থাকবে বলে কেউ তার জন্য বসে নেই। 
পড়ন্ত বিকেল। 
সিহামের নভোযানটি গ্রহ ত্যাগ করল। 

২: 
সিহাম নভোযানে প্রবেশ করার সময় দেখতে পেল এর নাম লায়ন্স গেট। 
শৈশবে এই ধরনের স্টার শিপের অনেক গল্প সে শুনেছিল। এধরনের শিপগুলি সাধারনত ইম্পরিয়াল নেভি ব্যবহার করে থাকে সম্রাটের স্পেশাল সিকিউরিটির জন্য। 
সিটে বসে একগ্লাস ড্রিংস নিল। ঠান্ডা পানিটুকু পেটে যাওয়ার কয়েক মিনিট বাদেই সিহামের পুরো শরীর ব্যাথায় কুকড়ে গেল। সে বুঝতে পারছে না কেউ কি তাকে মেরে ফেলতে চাইছে,নাকি সম্রাটের গ্রহে যাওয়ার দুঃসাহস দেখানোর শাস্তি, নাকি সে কোন প্রতারকদের খপ্পরে পড়েছে। এসব ভাবতে ভাবতে সিহাম জ্ঞান হারালো। যখন জ্ঞান ফিরল দেখতে পেল তার মাথা ধরে রেখেছে এক তরুনী ডাক্তারঃ স্যার কি হয়েছিল আপনার? 
গ্লাসের পানীয়টুকু খাবার পরই..... সিহাম বলছিল।
-ওটা আমরা পরীক্ষা করে দেখেছি সেখানে বিষক্রিয়ার উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু এখানে এত বেশি নিরাপত্তা দেওয়া হয় যে এখানে কোন প্রকার অনুপ্রবেশের সুযোগ নেই।
-তাহলে আপনি বলতে চান স্বয়ং সম্রাটের ইন্টিলিজেন্স ফোর্স এটা করেছে ডাক্তার?
সিহামের প্রশ্ন শুনে থতমত খেয়ে গেল তরুনী ডাক্তারটি।
সিহাম বললঃ তাহলে আমি পরবর্তী স্টেশনে নেমে যাই।
পাচ মিনিটের হাইপার ড্রাইভ দিয়ে লায়ন্সগেট প্লানেট অফ ক্যারিনা কনফেডারেশনে সিহামকে নামিয়ে দিয়ে চলে গেল। ক্যারিনা কনফেডারেশন প্রায় একহাজার ইন্ডিপেন্ডেন্ট গ্রহ যারা সম্রাটের প্রভাব থেকে মুক্ত। 

৩: 
ক্যারিনা কনফেডারেশন!
ওমেগা সেঞ্চুরী ও আলফা সেঞ্চুরীর এক হাজার গ্রহের সমন্বয়ে গঠিত একটি ইন্টারস্টেলার এলায়েন্স যার প্রতিটি গ্রহ স্বাধীন ও সম্রাটের ক্ষমতার প্রভাব থেকে মুক্ত। 
ক্যারিনা কনফেডারেশন সবদিক থেকে স্বাবলম্বী এবং একে অপরের এসোসিয়েট পাওয়ার হিসেবে কাজ করে। এই সমৃদ্ধ গ্রহগুলি একসময় বর্হিজাগতিক দস্যুদের দ্বারা নির্যাতিত ও একপ্রকার শাসিত ছিল। এই অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে কিং জিকাফসি পঞ্চাশটি গ্রহ নিয়ে ক্যারিনা রিপাবলিক গঠন করেন এবং সেটা পরে কনফেডারেশেনের রুপ নেয় ও ধীরে ধীরে আরো স্বাধীন গ্রহগুলি এই জোটে যোগ দেয়। 
এটা এখন এতই শক্তিশালী জোট যে এই কনফেডারেশনের এক নাগরিককে একবার সম্রাট গ্রেফতার করেছিলেন। তখন তিনি সম্রাটকে বলেছিলেনঃ সায়ার, আপনী কি চান আমাকে গ্রেফতারের খবর দ্রুত গ্যালাক্সির সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ুক আর আমার কনফেডারেশনের হাজার হাজার ওয়্যার শিপ এসে আপনার এম্পায়ার গুড়িয়ে দিয়ে আপনাকে ফাসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করুক? 
গ্যালাক্সির ক্ষমতাবান সম্রাট তাকে নিরাপদে পৌছে দিতে বাধ্য হয়েছিলন।
এই কনফেডারেশনের বয়স দুই হাজার বছরেরও বেশী। সিহাম যে গ্রহে ল্যান্ড করল তার নাম ফিনিক্স রিপাবলিক। এই গ্রহ কিছুটা বালুময় আর উপত্যাঞ্চাল ও লালচে পাথুরে মাটি। এর অর্থনীতি নির্ভর করে বাদাম জাতীয় শষ্য ও সুপেয় পানীয়
জলের উপর। 

৪: 
ফিনিক্স রিপাবলিক গ্রহে সিহামের সাথে পরিচয় হলো ষোড়শী এক তরুনী মানডোজার সাথে। সিহাম নিবিষ্ট মনে পার্কে হাটছিল আর ভাবছিল অতি দ্রুত তাকে একটি কাজ খুজে পেতে হবে। কিন্তু তার অভিজ্ঞতার সাথে মিল রেখে এখানে কাজ খুজে পাওয়া কঠিন হবে।
এক ত্রিশোর্ধ ব্যাক্তির হাত ধরে মানডোজা হাটছিল।
লোকটি সিহামের কাছে এসে বসল। পরিচয় পর্বের পর সে মেয়েটিকে দেখিয়ে বললঃ ওর নাম মানডোজা আমার বান্ধবী বলতে পার কিন্তু আমার বাসায় সুন্দরী স্ত্রী আছে আর মানডোজাও আমার কাছে সুখি নয়। যেহেতু সে আমার বান্ধবী আর ওর বয়সও কম তাই ওর একটা গতি না হলে তাকে আমি একা ছেড়ে দিতে পারি না।
তুমি এই গ্রহে নতুন,কৃষ্টি কালচার জান না। একজন গার্ল বা বয় ফ্রেন্ড কিংবা স্বামী বা স্ত্রী থাকলে কাজ পেতে সুবিধা হবে কারন জনসংখ্যা কম হওয়ায় সরকার রিপোডাকটিভ হেলথের উপর গুরুত্ব দিয়ে থাকে।
মানডোজাকে সিহামের ভাল লাগল। সিহামের ডান পাশেই সে বসেছিল। সিহাম রাজী হলো। কিন্তু লোকটি বললঃ মানডোজাকে নিতে হলে এক হাজার রিপাবলিকান ক্রেডিট দিতে হবে, মানডোজার পিছনে আমার নিট খরচ,ওর সাথে আমার এমনটি কথা হয়েছিল।
সিহামের কাছে এতো অর্থ নেই। সে অনুভব করল মানডোজা লোকটির চোখের আড়ালে তার প্যান্টের পকেটে কিছু রেখে দিল।
দুজনের অর্থ মিলিয়ে নয়শ ক্রেডিট হলো। সিহামের বাহু ধরে মুক্ত পাখির ন্যায় যেন আকাশে ডানা মেলে দিল মানডোজা।

৫: 
মানডোজার হাত ধরে সিহামের মনে পড়ল কিংডম অফ রাইন ইউনিয়নের প্লানেট অফ আকিদাহ'র এক বিশেষ দিনের কথা। উচ্চশিক্ষার জন্য ভর্তি হয়েছিল আকিদাহ কৃষি প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে। মাদার প্লানেট আকিদার কৃষিজ পন্যের উপর ইউনিয়নের দুইশত গ্রহই নির্ভর করে ও সম্রাট নিজেও এর ক্রেতা। বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা শেষের দিকে। সবচেয়ে কাছের বন্ধু যার সাথে পারস্পরিক সহযোগিতায় কাটিয়েছে জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়গুলি। একই ডিপার্টমেন্টের রিহানা মানজার, এক বছরের বড়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি শেষ করে বেরিয়ে যাচ্ছে,তার স্বপ্ন দানা শষ্য বিষয়ক সেন্ট্রাল মিনিস্টার হবে।
সিহামের স্বপ্ন; ল্যান্ড এন্ড ন্যাচারাল ফার্টিলাইজার স্পেশালিষ্ট। 
শেষদিনগুলির একদিনে সে রিহানার হাত ধরে কিছু পাহাড়ি ফুল দিয়ে বললঃ আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি রিহানা মানজার, চাকুরী পেলেই আমরা বিয়ে করবো, আমাকে ছেড়ে যেও না, আমরা সুখি হবো। দুজনে দুজনের জন্য যোগ্য ও ভাল জুটি ছিল। 
কিন্তু রিহানা বললঃ কে কার জন্য মনের ভিতরে প্রেম জমিয়ে রেখেছে ভাই? আমাকে যেতে দাও আর অন্য কাউকে খুজে নাও। রিহানার চাকুরী হয়েছিল ওমেগা সেঞ্চুরী এম্পায়ারের সম্রাটের দুইশত বর্গকিলোমিটার জুড়ে বিস্তৃত ইম্পেরিয়াল প্যালেসে। 
গ্যালাক্সির বিলিয়ন বিলিয়ন মানব সন্তানের কাছে রিহানা মানজার একটি মিথোলজিক্যাল নাম,সম্রাটের ডিসিশন মেকার।

{চলবে........} 

“কোহেকাফ নগর ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজ” লেখকঃ ড. রাইখ হাতাশি।
“AudaCity Divine Alliance Series” by Dr. Raych Hatashe

0 Comments: