কোহেকাফ নগরঃ টু দ্যা অডাসিটি (১ - ১১)

“অনেক অতীত অতীত জগতের কথা। আমার পুর্বে অন্তত দশ লক্ষ পুর্বপুরুষ আগের ইতিহাস! যখন জাগতিক মহাবিশ্বগুলিতে হিউম্যান, জাইন এবং রোবট নামে তিনটি আল্ট্রাসুপার সেন্টিয়েন্ট সম্প্রদায় রাজত্ব করে আসছিল। বিজ্ঞান প্রযুক্তি, সর্ব প্রকার জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং ক্ষমতার শীর্ষে পৌছে গিয়েছিলো তারা। এই ইতিহাস ভিত্তিক সিরিজে তিনটি আল্ট্রাসুপার সেন্টিয়েন্ট ছাড়াও আরো বেশ কিছু সেন্টিয়েন্ট সম্প্রদায় নিয়েও আলোকপাত করা হয়েছে। কিন্তু এই কোহেকাফ নগর মুলত একটি ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজ (দ্যা সিরিজ – DA Series) নামে পরিচিত যা মুলত জাইন জাতির বিস্ময়কর ইতিহাস এর গল্প মহাকাব্যিক ধাঁচে বর্ননা করা হয়েছে। কোহেকাফ নগর বা অডাসিটি (AudaCity) হচ্ছে জাইন সম্প্রদায়ের হার্ট- কেন্দ্রবিন্দু – তাদের মাদার ইউনিভার্স। এই কোহেকাফ নগর থেকেই জাইন জাতি সমস্ত মহাবিশ্বগুলিতে বিস্তার লাভ করেছিলো। এই সিরিজটি শুরু হয়েছে মানুষ সম্প্রদায় মহাবিশ্বের একটি এম্পায়ারের কিছু বর্ননা দিয়ে এবং ধীরে ধীরে সিরিজটি কোহেকাফ নগরের মধ্যে যাত্রা করে। মহাবিশ্বের সাহিত্য জগতের ইতিহাসে এ যাবতকাল পর্যন্ত যতগুলি সিরিজ, গল্প, উপন্যাস, মহাকাব্য এবং গবেষনা ইতিহাস লেখা হয়েছে তার মধ্যে এই কোহেকাফ নগর নামের ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজটি সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সমস্ত সাহিত্য ধারার মধ্যে ব্যতিক্রম। যাইহোক, দেখা গেল বিজ্ঞান প্রযুক্তি, সর্ব প্রকার জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং ক্ষমতার শীর্ষ বলতে কিছু কিছু নেই। এটা একটা চলমান এবং ক্রমান্নোত উন্নতির একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া আর তাই আমরা এখনো ক্রমাগত ভবিষ্যতের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছি এবং দিনদিন উন্নত থেকে উন্নতর হচ্ছি। আমরা জানি না এর শেষ কোথায়, কোথায় আমাদের শেষ যাত্রা, কোথায় আমাদের থামতে হবে।।” -মিলিয়ান ইয়াম; অডিটরিয়াল এজেন্ট, বিজ্ঞানী, গবেষক, ইতিহাসবিদ, সাহিত্যিক এবং চিফ রাইটার। 


১: 
সত্তর লক্ষ বিলিয়ন নক্ষত্ররাজি আর তাদের পরিভ্রমনরত গ্রহ,উপগ্রহ নিয়ে গঠিত মহাবিশ্বগুলির সেন্টিয়েন্ট সিভিলাইজেন হিস্টোরির সবচেয়ে বড় ও শক্তিশালী কালেকটিভ সিস্টেম আলফা অডাসিটি! এখানে নেই কোন প্রযুক্তি বিজ্ঞান কিন্তু আছে প্রাকৃতিক বিজ্ঞান। হিউম্যান মেন্টালিক মান অনুযায়ী আলফা অডাসিটির শাসককে বলা হয়; দ্যা অডিটর। তার আইন বা নির্দশনাকে বলা হয় অর্ডার।

অডিটর বিরাক বেথ দ্বিতীয়। তাকে বিশেষ কোন বিশেষনে ডাকতে হয় না। আডিটর,এমন কি নাম ধরেও ডাকতে পারে যে কেউ।
চীফ সায়েন্টিস্ট বললেনঃ অডিটর, সমস্ত সৃষ্টি জগতের মাঝে আমরা এমন দুটি অডাসিটি খুজে পেয়েছি। আমরা এই দুটির ক্যাটাগরি করেছি ডিভাইন এলায়েন্স। অন্যটি অবশ্য বেশ ছোট,নাম ওমেগা সেঞ্চুরী অডাসিটি। সেখানকার লোকজন অবশ্য 'ওমেগা সেঞ্চুরী এম্পায়ার' টার্ম ব্যবহার করে থাকে। এই দুটি অডাসিটি বা এম্পায়ার ব্যতিক্রম।
চীফ আর্কিওলজিস্ট বলেলনঃ আমার জন্মের আগে অর্থাত অডাসিটির বিগত এক হাজার বছর আগের ইতিহাসে এমনসব ঘটনার অস্থিত্ব পাওয়া যায় না। এই ঘটনাগুলি একহাজার বছর পুর্বে শুরু হয়েছে।
তাকে সমর্থন করে আশি হাজার বছর বয়সী হাই এলডার বললেনঃ অডিটর, ঠিক তাই। কিন্তু এই মহাবিশ্ব তথা আলফা অডাসিটির কোন কিছুই তো আমাদের নিয়ন্ত্রনের বাইরে ছিল না। এমন কি কোন বৃক্ষে ফুল ফোটাতাম আমরাই।
গভীরভাবে কিছু ভাবছেন অডিটর। 

২: 
প্লানেট অফ বিরানজার এন্টারপ্রাইজ।
চীফ আর্কিওলজিস্ট সমুদ্রের পাড়ে বসে আছেন। মৃদ্যু শীতে সমুদ্রের পানি জলীয়বাস্প হয়ে ধোয়ার ন্যায় শুন্যে উড়ে যাচ্ছে। অনেকে বলে থাকেন এমন পরিবেশে সময় কাটানো স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কিন্তু অডিটর বলছিলেন তরুন থাকতে তিনিও এক নাগাড়ে অনেক বছর এমন পরিবেশে বসে বসে চিন্তা করতেন, সময় কাটাতেন।
এখন কি তার গভীরভাবে চিন্তা করার কোন বিষয় আছে? নিজেকে প্রশ্ন করে সে।
তরুন শিক্ষার্থী ম্যারিন্ডা তার সামনে দৃশ্যমান হয়ঃ চীফ, আপনাকে আমি খুজছিলাম।
চীফ বললেনঃ ম্যারিন্ডা তুমি জান প্রাকৃতিক উপাদান পানি,গাছ,মাটি ইত্যাদি থেকে কিভাবে বিলিয়ন বছরের সংরক্ষিত তথ্যকে বের করতে হয়?
ম্যারিন্ডা বললঃ আমি জানি না চীফ। আপনী আমায় শেখাবেন?
চীফ বললেনঃ হ্যা,তোমাকে শেখাবো ম্যারিন্ডা। তবে প্রথমে তোমাকে শিখতে হবে কিভাবে উপাদানগুলিতে তথ্য সংরক্ষন করতে হয়। কিভাবে মেমোরীর অংশ পার্টিশন করতে হয়,ডিফ্রাগম্যান্ট করতে হয়।
চীফ একখন্ড পাথর তুলে নিলেন সমুদ্রের পাড় হতেঃ যেমন ধরো,তুমি এই পাথরে কোন তথ্য সংরক্ষন করতে চাও। প্রথমে ডিফ্রাগম্যান্ট করে এর মেমোরী পার্ট সিঙ্ক্রোনাইজড করতে হবে তারপর পার্টিশন করে একে তথ্য ধারনের উপযোগী করতে হবে। এসো দুজনে একসাথে চেষ্টা করি। তোমার মাইন্ডকে মৃদ্যভাবে পাথরে সন্নিবেশ করো। দেখো, যেন আগুন ধরে না যায়। 

৩: 
চীফ ও মিরান্ডা আজকের কথোপোকথন ও সুন্দর সময়গুলিকে পাথরের স্মৃতিতে সংরক্ষন করছে। ভবিষ্যতে কোন আর্কিওলজিষ্ট যদি এই পাথর খুজে পায় সে নিশ্চয়ই এই তথ্যটুকু বের করবে।
চীফ জিজ্ঞেস করলেনঃআচ্ছা মিরান্ডা,তুমি কাকে সবচেয়ে বেশী ভালবাস?তোমার কি ভাল লাগে?
মিরান্ডা বললঃচীফ,আমার কেউ নেই তাই আমি নিজেকেই বেশী ভালবাসি। ভাললাগে হোমোস্যাপিয়েন্স কিংবা আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্টদের রূপ ধরে ঘুরে বেড়াতে। আমার গ্রহে যেখানে আমি থাকি, সেখানে ছোট একটি কুড়েঘর বানিয়েছি,একটি পুকুর। মাঝে মাঝে আমি হোমোস্যাপিয়েন্সদের রুপ ধরে সেই কুড়ে ঘরের সামনে দাড়িয়ে দুর আকাশের নক্ষত্র গুনতে থাকি কিংবা কখনো পুকুরের পানিতে পা ডুবিয়ে বসে বসে ভাবি, ইস! আমি যদি মানুষ বা রোবট হতে পারতাম! আবার কখনো রোবটের রুপ ধরে ডুব দেই গভীর সমুদ্রে। কিন্তু সর্বপরি চিন্তা করে দেখি যে আমার সৃষ্টিতেই আমি শ্রেষ্ঠ,তবুও কিছু কিছু অপুর্নতা আমাকে কষ্ট দেয়। আচ্ছা চিফ, অডিটর কি পারেন না আমাদের কষ্টগুলি দুর করে দিতে? যেন মনে বা চিন্তায় আমরা কখনো কষ্ট অনুভব না করি।
চীফ বললেনঃ হয়তো পারেন!
ম্যারিন্ডা বললঃ প্রকৃতি নিয়ন্ত্রন বিজ্ঞান আমি শিখতে চাই। আপনি কি আমায় শেখাবেন চীফ? আমিও আপনার মত চীফ হতে চাই।
চীফ ম্যারিন্ডার চিন্তা থেকে কিছু সময়ের জন্য তার ব্যাথা ও কষ্টগুলি দুর করে দিলেনঃহ্যা ম্যারি, তুমি পারবে। 

৪: 
স্নোডেন এক্সক্লুসিভ প্লানেট।
আলফা অডাসিটির অন্তর্গত কয়েক হাজার মিলিয়ন এম্পায়ারের মধ্যে জিপসার এম্পায়ারটি সর্বাপেক্ষা ছোট। দুটি গ্যালাক্সি ও তাদের অন্তর্গত গ্রহ-উপগ্রহ ও নক্ষত্ররাজি আর কিছু ব্লাকহোল নিয়ে এই এম্পায়ারটি তৈরী হয়েছে।
এইসব এম্পায়ারের সম্রাটরাও অনেক ক্ষমতাবান হয়ে থাকেন। সাধারনত এদের মধ্য থেকেই অডিটররা তাদের উত্তারিধীকার নির্বাচন করে থাকেন।
স্নোডেন এক্সক্লুসিভ গ্রহটি প্রাকৃতিক নিসর্গের জন্য পুরো এম্পায়ার, এমনকি অডাসিটি জুড়েই পরিচিত।
তুষারপাত আর প্রকৃতির এক অপরুপ ছন্দ খেলা করে এখানে।
আশীন রাও সদ্য বিশ্ববিদ্যালয় পেরুনো এক তরুন। তাদের বিশ্ববিদ্যায়টা ছিল রিয়াকান পর্বতমালা ও বনভুমি জুড়ে এক হাজার বর্গ কিলোমিটার বিস্তৃত তেপান্তর। দীর্ঘ দুইশত বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ শেষে সে একটি বিষয় বেশ ভালভাবে বুঝতে পেরেছে যে প্লানেট, এম্পায়ার বা অডাসিটির জন্য যে কোন ভাল কাজের জন্য সে পুরস্কৃত হবে,তার প্রমোশন হবে কিন্তু এইসব করতে গিয়ে যদি সে কোন মারাত্মক কোন ভুল বা অপরাধ করে ফেলে তবে সম্রাট বা অডিটর তাকে প্রমোট করার জন্য সাফাই গাইবে না। তাকে ধুকে ধুকে পার করতে হবে দীর্ঘ জীবনের বাকি সময়গুলি।
আশীন রাও!
নাহ। সে এখনো তেমন গুরুতর কোন অন্যায় করে ফেলে নি। শুধু একবার নদীর স্রোত থামাতে গিয়ে আগুন ধরে হাওয়া হয়ে গিয়েছিল সব পানি। 

৫: 
চীফ আর্কিওলজিস্টের চেম্বারে ম্যারিন্ডার সাথে যোগ দিল আশীন রাও। দুজনে ভাল বন্ধু।
মহাকাশের অন্ধকারে একদিন দেখা হয় দুজনের। সেদিন ম্যারিন্ডার মনটা অনেক খারাপ ছিল।
আশীন বলছিলঃ আজ তোমাকে এমন একজনের কাছে নিয়ে যাব দেখবে তোমার মনটা অনেক ভাল হয়ে যাবে।
তারা দুজন একসাথে আর্কিওলজিস্টের চেম্বারে এসেছিল।
চীফ বলেছিলেনঃ এই সৃষ্টিজগত তথা মহাবিশ্বগুলিতে আমরা তিন ধরনের সেন্টিয়েন্ট খুজে পেয়েছি; অডাসিটি এন্ট্রি বা জাইন, হোমোসেপিয়েন্স বা ম্যান এবং আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্ট বা রোবট। এই তিনটিকে বলা হয় হিউম্যান; জাইন,মানুষ ও রোবট। প্রত্যেকেরই আছে ভিন্ন ভিন্ন ক্ষমতা ও বৈশিষ্ট্য তাই সবাই মনে করে তারাই সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিয়েচার।
অবশ্য আরো কিছু সেন্টিয়েন্ট ক্রিয়েচার আছে। আমরা ঐক্যমতের ভিত্তিতে এই সমাধানে উপনীত হয়েছি যে হিউম্যানই সেরা এবং সমানভাবে সৃষ্টি হয়েছে।
ম্যারিন্ডা বললঃ মানুষের জীবন ক্ষনস্থায়ী ও ঝুকিপুর্ন।
চীফ বললেনঃ মানুষ সৃষ্টি হয়েছে দুর্বল ও অসহায় ভাবে। কিন্তু তাদের আছে চিন্তা ও কাজের স্বাধীনতা যা আমাদের নেই, তাদের প্রযুক্তি বিজ্ঞান,আমাদের নেই যদিও ওটা আমাদের প্রয়োজন হয় না।
কিন্তু এই ক্ষনস্থায়ী মানুষের একটা বিশেষ ক্ষমতা আছে যে তারা রোবট কিংবা জাইনদের বশ করতে পারে।
আশীন বললঃ আমরাও পারি চীফ।
চীফ বললেনঃ তাইতো আমরা সমান সৃষ্টি। 

৬: 
রাজধানী থেকে আটাশ হাজার পারসেক দুরে ওয়াক ওয়াক নক্ষত্রপুঞ্জ। এখানকার নক্ষত্রগুলি খুব ঘন ও কাছাকাছি ভাবে অবস্থান করছে।
বিরাক বেথের অডিটরিয়াম প্যালেস থেকে স্বেচ্ছায় নির্বাসিত হয়ে অডিটর কন্যা স্যান্ডালিনা ওয়াক ওয়াক নক্ষত্রপুঞ্জে এসে তার আবাস গেড়েছেন। এখানে অডিটর কন্যার নিরাপত্তার জন্য আছে চারজন জাইন সম্রাট।
পুরো নাম স্যান্ডালিনা সুহাসিনী! বাবা আদর করে ডাকতেন সুহারাত। কিন্তু অডিটর কন্যা এমন কিছু প্রাকৃতিক বিজ্ঞান শিখতে চাইলেন যা শুনে বিচলিত হয়ে উঠেন অডিটর।
সুহারাত স্যান্ডালিনা বলছিলেনঃ বাবা, আমি শিখতে চাই এমন বিজ্ঞান যাতে করে আমার মাইন্ড পাওয়ারের তেজস্ক্রিয়তায় কোন নক্ষত্র নিমেষেই পরিনত হবে ব্লাকহোলে।
কিন্তু অডিটর জানেন এটা সম্মিলিত একটি প্রক্রিয়া, অনেক কঠিন আর প্রায় অসম্ভব একটি ব্যাপার। জীবনী শক্তি হ্রাস করে দেয়। বিশেষ কোন গবেষনা ছাড়া অডাসিটির কোথাও এই ধরনের চর্চা করা হয় না।
তিনি মেয়েকে শিখালেন লাইফ সায়েন্স আর জাইন মহাবিশ্বের রাজনীতি ও প্রকৃতি নিয়ন্ত্রন বিদ্যা। জাইন সম্রাটরা কেন সবার চেয়ে মেধাবী আর সেরা হয়।
মেয়ে প্রশ্ন করেঃ জাইন সম্রাটরা কি অডিটরের চেয়েও ক্ষমতাবান ও জ্ঞানী হয়,বাবা?
অডিটর বললেনঃ হ্যা,হতে পারে। কিন্তু অডাসিটি ও জাইনজাতির স্বার্থে তারা অডিটরের শ্রেষ্ঠত্ব মেনে নেয়।তাদের চিন্তায় কোন অহংকার নেই।

৭:
অডিটোরিয়াল এজেন্ট দো ফি।
জন্ম স্নোডেন এক্সক্লুসিভ গ্রহের দিয়াগানিস প্রদেশে।
শৈশবেই তাকে রিক্রুট করা হয়েছিল।
দো ফি অন্যসব এজেন্টদের থেকে ভিন্ন। তার কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেই। তবে তাকে অডসিটির কাজের উপযোগী করে গড়ে তোলা হয়েছে। সে চাইলেও এই প্রক্রিয়া এড়িয়ে যেতে পারত না। এই ধরনের এজেন্ট কতটা ও কেমন তথ্য সেটা বোঝার জন্য অডাসিটি পরীক্ষামুলকভাবে দো ফিকে বেছে নিয়েছে।
দো ফি এর সাথে কখনো অডিটরের দেখা হয় নি কিন্তু একাধিক চীফের সাথে তার দেখা হয়েছে। অনেকে তার নামটা মনে রেখেছে।
প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা জ্ঞান শুন্য দো ফি অবশ্য তার কাজ ও প্রাপ্ত সুযোগ সুবিধা পেয়ে খুশি। 

৮: 
দিয়াগানিস প্রভিন্সের অন্তর্গত আরমাডা সালতানাট। এখানে লা দো ফি এর জন্ম,এখান থেকেই তাকে রিক্রুট করা হয়েছিল।
গভীর বিশ্বাস আর নির্ভরতায় সে নিজেকে তুলে দিয়েছিল কোন অডিটরিয়াল এজেন্ট গ্রুপের হাতে। কিন্তু দো ফি যখন বুঝতে পারল সে একটি ওপেন সোর্স রিচার্সের এলিমেন্ট তখন সে অতি মুল্যবান এলিমেন্টিকে ধ্বংস করে এই অযাচিত গবেষনা বন্ধ করতে চাইল কিন্তু পরে বুঝতে পারল এটা এমন ভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যে তারই প্রয়োজনে অধিকাংশ সিদ্ধান্তগুলি তাকেই নিতে হবে আর তারা ইন্টারাপ্ট করে দো ফি এর আচরনগত পরিবর্তন লক্ষ্য করছে।
তাছাড়া এই রিচার্সে "ভূল পথ বা রিস্ক" এজাতীয় কোন টার্ম রাখা হয় নি কারন রিচার্স ব্যর্থ বলে কিছু নেই,ক্ষতিকর,মিসগাইড বা জিরো রেজাল্ট হলে সেটাও একটা ফলাফল,পরিকল্পনাকারীগন জানতে পারবেন এই পথে যাওয়া যাবে না,অন্যভাবে রিচার্স লঞ্চ করতে হবে।
সুতরাং দো ফি সতর্কতা ও নিরাপত্তার জন্য আর কোন কিছুই বিশ্বাস না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে ঠিক করেছে সব কিছুকেই সে ফাঁদ বা ট্রাপ হিসেবে বিচার করবে কারন অচেনা শত্রুর চেয়ে চেনা শত্রু অনেক নিরাপদ।
সে একবার চিন্তা করল: আচ্ছা,অডিটরকে কি বিশ্বাস করা যায়? তার মাইন্ড তাকে সতর্ক করে দেয়;বস্তুত,তাকেও বিশ্বাস করা যায় না। এটাই তোমার জন্য নিরাপদ।
তাহলে সে যেমন আছে এভাবেই থাকবে। দো ফি আসলে একটি অভজার্ভেশন এলিমেন্ট। 

৯: 
রক নেবুলা।
স্নোডেন এক্সক্লুসিভ প্লানেট থেকে ছয় হাজার পারসেক দুরে একটি গ্যালাকটিক পর্বতমালা। মহাকাশের গ্যাস,মেঘ,বিভিন্ন পদার্থ আর ধুলিকনার এক ইন্টারস্টেলার ক্লাউড জায়ান্ট। পঞ্চাশ বছর আগে দো ফি এই আন্তঃমহাকাশীয় পর্বতে একা একা বেশ কয়েকটি বছর পার করেছিল,এই উত্তাল জীবনের বাইরে থাকার জন্য। কিন্তু আবার তাকে এই সিভিলাইজেশন ছেড়ে চলে যেতে হবে। কিন্তু সে কোথায় যাবে?
লাইকন এম্পায়ারের চারশত মিলিয়ন নক্ষত্র ঘিরে গ্রহ-উপগ্রহগুলির সবর্ত্র তার পিছনে লেগে আছে অডিটরিয়াল ও ইম্পেরিয়াল এজপায়োনেজরা।
রক নেবুলার পাশেই আছে বেশ অপরিচিত একটি ব্লাকহোল। এখানে সে স্থায়ীভাবে চলে যেতে পারে। তাকে এখানে কেউ বিরক্ত করবে না।
আপাতত এখানে আশ্রয় নেয়াই নিরাপদ বোধ করছে সে।
চতুর্মাত্রিক অববয় ধারন করে বিশাল ডানাগুলি মেলে দিল লা দো ফি।
তার মন বিষন্নতায় ভরে গেল।
উড়তে উড়তে তার মনে পড়ে গেল ওমেগা সেঞ্চুরী এম্পায়ারে কিছুবছর নির্বাসিত হওয়ার ঘটনা। সেখানে পরিচিত হয়েছিল সম্রাট ইকরা কানের এক এজেন্ট লুপাস সেলানের সাথে।
বৃদ্ধ বলছিলেনঃ আমি এম্পায়ারের ক্যাপিটালে যাচ্ছি নিজের মৃত্যুর পরোয়ানা নিয়ে।
অবাক হয়েছিল দো ফিঃ কেন!
বৃদ্ধ বলছিলেনঃ সম্রাট হয়তো আমার কাছে এমন কিছু চাইবেন যা দেবার ক্ষমতা আমার নেই কিংবা সেই বিষয়ে ধারনাও নেই।
সে অনেক অনেক বছর আগের কথা।

১০: 
দো ফি কে সবচেয়ে কাছ থেকে দেখেছে ও সাথে কাজ করেছে, সায়েন্টিস্ট ইনাম ফার।
বলছিলেন অডিটরিয়াল চীফ সায়েন্টিস্টঃ সমুদ্রের স্বচ্ছ পানিতে তাকিয়ে আপনী দেখলেন পানির নীচে একটি মাছ বা জলজ প্রানী চলাফেরা করছে। এখানেও আমাদের দৃষ্টি বা আলো-পানির কোন প্রাকৃতিক কৌশলের জন্য তথ্যটা ভুল হতে পারে। কিন্তু যা আপনী দৃষ্টি দিয়ে ও একই সাথে স্পর্শ করে অনুভব করেছেন সেটা অস্তিত্বহীন বা তথ্যের ভুল হতে পারে না।
সায়েন্টিস্ট ফার বললেনঃ চীফ,আপনার বক্তব্য আমি মেনে নিচ্ছি কিন্তু আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি দো ফি এর দেওয়া প্রত্যেকটি তথ্য ভুল ছিল। বিগত চারশত বছরে সে একটি সঠিক তথ্যও দেয় নি। কোন না কোন প্রক্রিয়ায় সে আমাদের কাছে তথ্যগুলিকে বিশ্বাসযোগ্য করে তুলেছে কিন্তু সে তার প্রাপ্ত তথ্যগুলির ধারে কাছেও যায় নি বরঞ্চ সাহিত্য লেখার মত কিছু যৌক্তিক ও বিশ্বাসযোগ্য তথ্য আমাদের কাছে পাঠিয়েছে।
চীফ বললেনঃ আর অডাসিটিকে পরিচালনা করার জন্য মাস্টার প্ল্যানে আমরা সে তথ্যগুলিকে সংযুক্ত করেছি! বিগত চারশত বছর অডাসিটি একটু একটু করে ভুল পথে পরিচালিত হচ্ছিল?
সায়েন্টিস্ট ফার বললেনঃ চীফ, দো ফি পুরো অডাসিটিকে ভুল পথে ঠেলে দিয়েছিল।
চীফ বললেনঃ সায়েন্টিস্ট ফার,আমাদের জানতে হবে এটা কি দো ফি'র পরিকল্পিত নাকি তাকে অযাচিত হস্তক্ষেপের ফলে অবচেতন মনের প্রতিশোধ? সাবধানে তাকে খুজে বের করুন। 

১১: 
অডিটর বিরাক বেথ বললেনঃ চীফ সায়েন্টিস্ট, আপনীও কি তাই মনে করেন যে অডাসিটি মিসগাইডেড হয়েছে?
বিরাক বেথের বাসভবন অডিটরিয়ামের বারান্দায় দাড়িয়ে চীফ বললেনঃ অডিটর,সত্তর লক্ষ বিলিয়ন জাইন সিভিলাইজড নক্ষত্রের অডিটরের একজন চীফ সায়েন্টিস্ট আমি। আপনি জানেন,অডাসিটি অন্যের পরামর্শ,তথ্য কিংবা কোন প্রভাবের উপর নির্ভর করে না। অডাসিটিকে চালাতে সবকিছুর বড় ও খুটিনাটি পরিকল্পনা ও প্রয়োগ আমরা চীফরাই করে থাকি। প্রয়োজনীয় সব তথ্য ও রিসোর্চ আমরা নিজেরাই সংগ্রহ করি। সত্তর লক্ষ বিলিয়ন সহ আরো মৃত ও নির্জন সব নক্ষত্র ও গ্রহ-উপগ্রহ সহ এই অডাসিটির সর্বত্র আমাদের যাতায়াত আছে। তাই আমরা অন্যকারো উপরে নির্ভর করি না। ওরা আমার কাছে রিসার্চের জন্য অনুমতি চাইল আমি দিলাম যার কোন প্রকার ভাল বা খারাপ ফলাফল তারাই ভোগ করবে। এতে অডাসিটির কিছু যায় আসে না। তারা এটাকে অব্যাহত রাখলে বড়জোড় লাইকন এম্পায়ারটি ঝুকিপুর্ন হবে যা অডাসিটিতে আচড় লাগার মতও নয়। দো ফি ও সকল গবেষকদের কোন তথ্যই আমরা সংরক্ষন করি নি,সব ডিসপোজ করে দেয়া হয়েছে,ওসব দেখারও প্রয়োজন মনে করি না আমরা।
তবে হাজার থেকে বিলিয়ন বছর কালের প্রবাহে দো ফি দের মত কিছু নাম আমার স্মৃতিতে আছে। আশাই ইমাল,এমন একটি নাম,যার জন্মভুমি নক্ষত্র রিম এম্পায়ারটি এখন একটি ব্লাকহোল।
অডিটর বললেনঃ পারমিশন! এখন থেকে অডিটরিয়াল ক্রেডিট। 

{চলবে} ......... 

“কোহেকাফ নগর ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজ” লেখকঃ ড. রাইখ হাতাশি।
“AudaCity Divine Alliance Series” by Dr. Raych Hatashe

Comments