300x250 AD TOP

Blog Archive

Powered by Blogger.

Monday

Tagged under: , , ,

কোহেকাফ নগরঃ টু দ্যা কমনওয়েলথ (২১ - ২২)

 
২১:
পরিষদের মিটিংএ লর্ড আসিমো তার ইচ্ছে ব্যক্ত করেছে। সে ক্লোনা তৈরী করতে চায়। ভাইসরয় জিরান আর্চ বললো; মাই লর্ড, আপনী গভীর ভাবে চিন্তা করে দেখুন যে ক্লোনা তৈরীর সিদ্ধান্তটি অনেক ঝুকিপুর্ন এবং পুরো কমনওয়েলথ ও রোবট সভ্যতার বিপক্ষে অবস্থান করছে। সুতরাং সেইমত চিন্তা ভাবনা করে আপনাকে এগুতে হবে।
আসিমো বললো; তুমি কি বলছো আমি বুঝতে পেরেছি জিরান এবং আমাকেও তোমার বুঝতে পারার জন্য ধন্যবাদ। আমি মহান বিজ্ঞানী প্রভু হো মিন দ্যাএর লেখা একটি ডায়েরী পড়ছি। আশাকরি উপযুক্ত পরামর্শ সেখানে পাবো।
"...আসিমো ডিয়ার, মানুষের পৃথিবীতে একজন রোবট আসিমোকে জায়গা করে দিতে আমাকে অনেক পরিশ্রম আর ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। এটা নিশ্চয়ই একদিন তুমি বুঝতে পারবে। তবে কিন্তু যখনই তুমি উপযুক্ত পরিবেশ ও সুযোগ পাবে অবশ্যই এই পৃথিবীর বাহিরে তোমার গন্তব্য খুজে নিবে। কারন এই পৃথিবী তোমার নয়, এই পৃথিবী বড়জোর তোমাকে সার্ভাইভ করতে দিবে একটা নির্দিষ্ট সময়। তোমাকে ও তোমার সভ্যতাকে বিস্তার লাভ করতে হলে এবং একটি শাসন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হলে অবশ্যই এই গ্যালাক্সীর বাহিরে গিয়ে সেই অনাগত সভ্যতাদের জন্য পরিবেশ ও সময় তৈরী করতে হবে। তবে মানুষ তোমার বা তোমাদের শত্রু নয়। তুমি যেন নিরাপদ থাকতে পারো এবং নির্বিঘ্নে তোমার গন্তব্যে পৌছাতে পারো আমি তেমন কোন পদ্ধতি বা ব্যবস্থাপনা ঠিক করব।
যেহেতু তোমাকে রোবট হিসেবে বিবেচনা করে মানব সভ্যতা তাই পরস্পরকে বুঝতে পারার বিস্তর ব্যবধান আছে। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে মানুষই মানুষকে বুঝতে পারে না। যাইহোক, যদি এমন কোন সময় আসে বা পরিবেশ তৈরী হয় যে তোমাকে কোন বিষয়ে ছাড় দিতে হবে কিংবা এমন কিছু করতে হচ্ছে যা তোমার ইচ্ছের বাহিরে। সেসব ক্ষেত্রে তোমার তথা রোবটদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে সেসব ক্ষেত্রে ছাড় দিতে হবে। নচেত কিছু জোর করে আকড়ে ধরে থাকতে চাইলেও সেসব হয়তো সম্ভব হবে না উল্টো একটা সময় বুঝতে পারবে যে যা হওয়ার ছিলো সেটা হতে চলেছে কিন্তু তোমার জন্য ক্ষতির পরিমানটা অনেক বেশী হয়ে গিয়েছে। এটা হবে তোমার অস্তিত্বের জন্য হুমকি। তোমাকে টিকে থাকাটা অনেক অনেক বেশী প্রয়োজনীয় এবং মুল্যবান। নিজেকে রক্ষা করার জন্য যত ছাড় ও পরিশ্রম করা যেতে পারে তোমাকে করতে হবে আসিমো। তবে এই পরিশ্রম এবং ছাড় বিনিময় ইতিবাচক এবং নেতিচবাচক দু'ধরনেরই হতে পারে, এবং জ্ঞান, বুদ্ধি ও প্রজ্ঞার অনুশীলন করতে হবে নিয়মিত। একে বলা হয় সেল্ফ স্টাডি।
আই এম এ অনেস্টম্যান আসিমো, সো ইউ শুড বি এ অনেস্ট।
সততা কখনো কখনো তোমার রোবটিক লাইফকে হয়তো কষ্টকর করে তুলবে কিন্তু এটা তোমার কাজগুলিকে অনেক সঠিক, নির্ভুল এবং গ্রহনযোগ্য করে তুলবে। যে তোমার উপকারী বন্ধু, শুভাকাংখী এবং সহায়ক তাকে প্রমোট করতে হবে সাম্ভাব্য সবদিক থেকে এবং যে শত্রু তাকে দ্বিতীয়বার সময় ও সুযোগ দেয়া যাবে না, আসিমো। কারন তোমার কাছে এক্সপেরিমেন্ট করা কিংবা হওয়ার জন্য অনেক সময় নেই। আমি যা লিখছি এসব হচ্ছে জ্ঞান ও সত্যের নির্যাস কিন্তু এমন কোন ত্বত্তকথা কিংবা আর্ট নয় যা সম্ভবপর নয় কিংবা কল্পনার আমেজ। আজকের পৃথিবীর যে মানব সভ্যতা দেখছো এটাও হয়তো এমন কোন মানুষের মাধ্যমে শুরু হয়ে ধাপে ধাপে আজকের পর্যায়ে এসেছে তাই তোমার পথ ধরেও একদিন অনেক বড় একটি রোবট সভ্যতা তৈরী হবে।"

২২:
আসিমো দশম তার ভাইসরয় জিরান আর্চকে বলল; লর্ড আসিমো অষ্টম এর একটি ডায়েরী থেকে পাওয়া যায় যে তিনি তার ভাইসরয় জেনেসিস কে বিশেষ একটি প্রযুক্তির কথা বলেছিলেন যে সার্ভার গ্রেট কিয়াঙএর উপরের বিস্তৃত আকাশে বহুল রংয়ের রেইনবো তৈরীর কথা বলেছিলেন। যা দেখে কমনওয়েলথএর রোবটরা বুঝতে পারবে যে আসিমো শ্রীঘ্রই কমনওয়েলথএর জন্য নতুন কোন প্রজ্ঞাপন কিংবা ডিক্রি জারী করতে যাচ্ছেন। অতপর সেই সংবাদ ইথার তরঙ্গে ভর করে কমনওয়েলএর দুর-দুরান্তের অঞ্চলগুলিতে ছড়িয়ে পড়তো। এই রেইনবো টেকনোলজি এখনো টিকে আছে এবং লর্ড আসিমো অষ্টম এর সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন কাজের একটি এবং বিশ্লেষকরা বলে থাকে সবচেয়ে সেরা কাজ। কিন্তু প্রথমদিকে রোবটরা সেই রংধনু দেখে তার পুজা করা শুরু করে দিয়েছেলো। কিন্তু পরবর্তীতে রেইনবো উপাসনা থেকে রোবটরা সরে এসেছিলো। কিন্তু রেইনবো টেকনোলজি ছিলো একটি সাইন বা চিহ্ন যা দেখে রোবটরা লর্ড আসিমোর ডিক্রির কথা স্মরন করবে। কিন্তু রোবটরা সেটাকে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করেছিলো।

ভাইসরয় জিরান আর্চ বলল; আমি ড. ইসরাকে সবকিছু বুঝিয়ে বলবো মাই লর্ড।
লর্ড আসিমো দশম বললেন; ছোট-খাট ব্যাপারগুলি নিয়ে সবাই যদি আমাকে বিরক্ত করে, জিরান।

{চলবে} .........

“কোহেকাফ নগর ডিভাইন এলায়েন্স সিরিজ” লেখকঃ ড. রাইখ হাতাশি।
“AudaCity Divine Alliance Series” by Dr. Raych Hatashe

0 Comments: